Shirshendu Mukhopadhyay: সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ের পত্নীবিয়োগ, শোক প্রকাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রী

Loading...

প্রয়াত হলেন সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ের স্ত্রী সোনামন মুখোপাধ্যায়। শুক্রবার রাত পৌনে ৯টা নাগাদ যোধপুর পার্কের বাড়িতে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। সোনামনের বয়স হয়েছিল ৮০।
পারিবারিক সূত্রে জানা গিয়েছে, বহু বছর ধরেই ফুসফুসের রোগে আক্রান্ত ছিলেন সোনামন। সিওপিডি-র রোগী হিসাবে নিয়মিত চিকিৎসা চলত তাঁর। শুক্রবার রাত ৮টা নাগাদ হঠাৎ অসুস্থ বোধ করতে থাকেন তিনি। পালস রেট কমতে থাকায় তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তার আগেই মৃত্যু হয় সোনামনের।

সোনামনের মৃত্যুসংবাদ পেয়ে শোক প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতা লেখেন, ‘বিশিষ্ট সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ের সহধর্মিণী সোনামন মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি।’ মুখ্যমন্ত্রীর বার্তায় আরও লেখেন, ‘সাহিত্য-অনুরাগিণী ও সাহিত্যব্রতী সোনামন মুখোপাধ্যায় সাহিত্যের রসাস্বাদনে পারঙ্গম ছিলেন। তিনি নিজেও সাহিত্যের আসরে স্বকীয় স্বাক্ষর রেখেছেন। এক সময়ে শিক্ষকতা ও সংগীতচর্চার সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন। আমার সঙ্গে তাঁর মধুর সম্পর্ক ছিল।’ সোনামনের প্রয়াণে শিল্প ও সংস্কৃতি জগতে এক বিশেষ ক্ষতি হল বলে মন্তব্য করেন মমতা।

Loading...

সোনামনের আদি বাড়ি বাংলাদেশের নরসিংডিতে। দেশভাগের পরে পরিবারের সঙ্গে চলে আসেন উত্তরবঙ্গের কোচবিহারে। সেখানেই বিয়ে হয় শীর্ষেন্দুর সঙ্গে। সাহিত্যিকের সঙ্গে সংসারের শুরু শিলিগুড়িতে শীর্ষেন্দুর পৈতৃক বাড়িতেই।
সোনামন ও শীর্ষেন্দুর দুই সন্তান। মৃত্যুর সময়ে স্বামী, কন্যা দেবলীনা, পুত্র সম্রাট, পুত্রবধূ সীমন্তিনী ও নাতনি নীরাজনা ছিলেন তাঁর পাশেই। পরিবারিক সূত্রে জানানো হয়েছে, শুক্রবার রাতে সোনামনের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয় কেওড়াতলা শ্মশানে।

Loading...
Loading...
Share

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *