বাটার চিকেনে প্রেম মনপ্রীতের, লভলিনার ভয় উচ্চতায়: খোলামেলা আড্ডায় পদকজয়ীরা

Loading...

 একজন অ্যাথলিটের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ হল ফিটনেস। নিজেকে তরতাজা রাখতে ও মাঠে নিজের একশো শতাংশ দিতে ফিট থাকাটা প্রয়োজন। তবে এই ফিট থাকতে অনেক পরিশ্রম করতে হয় অ্যাথলিটদের। অনুশীলনের পাশাপাশি সবথেকে জরুরি হল খাবারে নিয়ন্ত্রণ। কিন্তু এই নিয়ন্ত্রণ তো সবসময় থাকে না। চিট ডে তো থাকে। সেই সময়টা কী থাকে অ্যাথলিটদের মেনুতে?

সম্প্রতি নিজের টুইটারে একটি ব়্যাপিড ফায়ারের ভিডিও পোস্ট করেন অনুরাগ ঠাকুর। যেখানে অলিম্পিক পদকজয়ীদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। যেখানে প্রশ্ন করা হয় পুরুষদের হকি দলের অধিনায়ক মনপ্রীত সিংকে। তাঁর পছন্দের খাবার নিয়ে। তিনি বলেন, তাঁর পছন্দ বাটার চিকেন। নীরজ চোপড়া তাঁর ডায়েটিং নিয়ে সতর্ক। তিনি ফল খেয়েই থাকতে পছন্দ করেন।

Loading...

তবে শুধু মেনুতেই আটকে থাকেনি এই ব়্যাপিড ফায়ার। আরও নানান বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়। ৪১ বছরের খরা কাটিয়ে এবার হকিতে পদক এনেছে ভারত। এই খবর যখন নিশ্চিত হয় তখন অধিনায়ক মনপ্রীত সিং সবার প্রথমে নিজের মা-কে ফোন করেন। বলেন, ‘আমার আমার মাকে প্রথমে ফোন করি। কারণ আমার বাবার স্বপ্ন ছিল অলিম্পিকে আমার গলায় পদক থাকুক। কিন্তু যখন স্বপ্ন পূরণ হল তখন উনি আমাদের মধ্যে নেই’।

অন্যদিকে পদক জিতে নিজের বাড়িতে ফোন করেন লভলিনা। নীরজ ফোন করেন দেশের প্রাক্তন জ্যাভলিন প্লেয়ার জয় চৌধুরিকে। মনপ্রীত মজা করে বলেন, হকি না থাকলে উনি দুবাইতে ট্রাক চালাতেন।

Loading...

কে কীসে বেশি ভয় পায়? এই প্রশ্নের জবাবে মনপ্রীত জানান, তিনি মাকে কখনও সত্যি বলেন না। বিপক্ষকে ঘুঁসি মেরে উড়িয়ে দেওয়া লভলিনা জানান, উচ্চতায় তাঁর বেশি ভয়। তবে নীরজ ভয় পান না কিছুতেই।

করোনার কারণ এই বছর বন্ধ দরজার পিছনে হয় অলিম্পিক। ২০০-রও বেশি দেশ থেকে ১১ হাজার অ্যাথলিট টোকিও অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করেন। পাশাপাশি এইবছর সবথেকে বেশি অলিম্পিক পদক জয়ের রেকর্ড গড়ে ভারত।

Loading...
Loading...
Share

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *