ধেয়ে আসছে তালিবান! ভয়ে কাঁটা ফাতিমারা

Loading...

 মাসখানেক আগের কথা। প্রচণ্ড অস্বস্তিতে ঘুম ভেঙেছিল আফগানিস্তানের মালিস্তান জেলার বাসিন্দাদের। অস্বস্তি আরও বেড়ে গিয়েছিল ‘তালিবান এলাকার দখল নিচ্ছে’ খবরটি শুনে। গত ১৩ জুলাই দুপুরের মধ্যেই রণক্ষেত্র হয়ে উঠেছিল ওই জেলার কোল এ আদম গ্রাম। আফগান সৈন্য বনাম তালিবান, গুলির লড়াইয়ে কান ঢেকে বসেছিলেন সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা যুবতী ফাতিমা। বুলেটের লড়াইয়ে প্রাণ বাঁচানোর চেয়ে বড় হয়ে উঠেছিল অন্য দুশ্চিন্তা। সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর কী হবে! কোন দেশ দেখবে সে? এমনই চিন্তাই আস্টেপৃষ্ঠে ঘিরেছিল তাঁকে। গ্রামের দখল নিয়ে নিতে পারলে তো তাঁকেও অন্য মহিলাদের মতো আটক করা হবে! এই চিন্তাও ঘুরপাক খাচ্ছিল ফাতিমার মাথায়। এক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ২২ বছরের যুবতী বলেন, ‘তালিবানরা পুরুষদের হত্যা করে এবং মহিলাদের কুক্ষিগত করে রাখত এই ধরনের গল্প আমরা ছেলেবেলা থেকে শুনে আসছি। ভয় কাকে বলে সেটা বুঝেছিলাম ওইদিন’।

তাঁর সংযোজন, ‘আগে যখন ওঁরা (তালিবান) আমাদের গ্রামে এসেছিল, তখন একটি মেয়েকে নিজেদের সঙ্গে নিয়ে যেতে চেয়েছিল। কিন্তু তার আগে মেয়েটি আত্মহত্যা করে’। অতীতের ওই ঘটনার স্মৃতি যেন ফিরছিল ফাতিমার চোখে! তিনি জানিয়েছেন, যুদ্ধ শুরুর পর কট্টরপন্থী সংগঠনের যোদ্ধারা গ্রামবাসীদের বাড়িতে গিয়ে মহিলাদের নোংরা কাপড় ধুয়ে দেওয়া এবং খাবার বানিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিতে শুরু করে। এর ঠিক তিনদিন পর মালিস্তানের দখল নেয় তালিবান। ফাতিমা অবশ্য তার আগেই এলাকা ছেড়ে পালিয়ে এসেছিলেন। ফাতিমার কথায়, ‘আমি নিজের পরিবারের সঙ্গে হাঁটতে শুরু করি। পাহাড়ের মধ্যে দিয়ে ২৪ ঘণ্টা হেঁটে গজনী শহরে পৌঁছেছিলাম। সেখানে এক গাড়ির চালককে তিনগুণ টাকা দিয়ে কাবুলের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলাম’।

Loading...

তিনি জানিয়েছেন, তাঁর মতো প্রায় ৫০-৬০টি পরিবার ওই জেলা থেকে পালিয়ে আসে। শুধুমাত্র বয়স্করা চোদ্দ পুরুষের ভিটের মায়া ত্যাগ করতে না পেরে সেখানেই রয়ে যান। দেশের বেশিরভাগের দখল তালিবানের হাতে চলে যাওয়ায় আতঙ্কে রয়েছেন ফাতিমার মতো বহু আফগানবাসী। যাঁদের সন্তান এখনও ভূমিষ্ঠ হয়নি, তাঁরা ফাতিমার মতোই ভাবছেন, ‘এ কোন দেশ দেখবে সন্তান! আদৌ দেখবে তো’?

বর্তমানে কাবুলের পথে ঘাটে ক্যাম্প করে থাকতে শুরু করেছেন তালিবান অধিকৃত এলাকার বাসিন্দারা। আফগান মন্ত্রকের তরফ থেকেও জানানো হয়েছে, উদ্বাস্তুদের ৭০ শতাংশ মহিলা এবং শিশু।

Loading...

কিন্তু লোগার দখলের পর কাবুল দখলও যে অবশ্যম্ভাবী সেই আশঙ্কায় বুক কাঁপছে আফগান মুলুকের মহিলাদের। ‘তাহলে কী পাহাড় পর্বত পেরিয়েও সন্তানকে সুদিন দেখাতে পারব না’, প্রশ্ন তুলছেন ফাতিমারা।

Loading...
Loading...
Share

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *